শিরোনাম :
এবার মৃত ব্যক্তির ব্যাংকের টাকার পাওনাদার নিধারণী মামলা আপিল বিভাগ হাইকোর্টের ঐতিহাসিক রায়: শিশু অপরাধীর সাজা সর্বোচ্চ ১০ বছর বনানী কবরস্থানে এইচ টি ইমাম চিরনিদ্রায় শায়িত কারা অধিদফতরের সাবেক ডিআইজির মামলায় ৩১ মার্চ সাক্ষ্য গ্রহণ এইচ টি ইমাম দেশপ্রেমের উন্মেষ ঘটিয়েছেনঃ মেয়র তাপস অযথা মামলা মোকদ্দমায় অর্থ ব্যয় না করে দেশের উন্নয়নে এগিয়ে আসুন: এলজিআরডি মন্ত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা করোনার ভ্যাকসিন নিলেন পি কে হালদারের বান্ধবীকে পুনরায় ৩ দিনের রিমান্ডে নিয়েছে দুদক ডিএনসিসির ও ডিসিসিআই স্মার্ট সিটির কাজ একত্রে করতে চায় ক্রিকেটার নাসিরের স্ত্রীর সাবেক স্বামীর রিট দায়ের ২০ কোটি টাকায় প্রকৌশলী আশরাফুলের দায়মুক্তি, দুদকের ব্যাখ্যা চায় হাইকোর্ট এইচ টি ইমামের মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর শোক এইচ টি ইমামের ইন্তেকাল অবশেষে নিখোঁজ ব্যবসায়ী আবু সাঈদ উদ্ধার হয়েছে ক্যাসিনোকান্ড ও অর্থপাচার মামলায়, ২৪ মার্চ সম্রাট-আরমানের তদন্ত প্রতিবেদন ভুয়া এনআইডি, ঢাকা ব্যাংকের অর্থ আত্মসাতের মামলায় ৫জনের রিমান্ড গ্রাহকের স্বর্ণ আত্মসাৎ মামলায়, জামিন পেলেন সমবায় ব্যাংকের চেয়ারম্যান মহি ঢাকা সিটির খালের দুই পাশে গড়ে উঠা অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হবে: এলজিআরডি মন্ত্রী ডিএমপির ট্রাফিক পুলিশের ১’শ জনকে প্রাথমিক চিকিৎসা প্রশিক্ষণ সনদ প্রদান সাংবাদিক কাশেমের ভগ্নীপতি: ব্যবসায়ী আবু সাঈদ নিখোঁজ
শুক্রবার, ০৫ মার্চ ২০২১, ০৭:৫৭ পূর্বাহ্ন

যশোরে প্রতিবন্ধী লিতুন জিরার পিইসিতে জিপিএ ৫ অর্জন

দূরবীণ নিউজ ডেস্ক:
যশোরের মনিরামপুর উপজেলার শেকপাড়া খানপুর গ্রামের হাবিবুর রহমানের মেয়ে লিতুন জিরা দুই হাত-পা ছাড়াই শুধুমাত্র মুখে ভর দিয়ে লিখেই এবার পিইসি পরীক্ষায় জিপিএ-৫ পেয়েছে। তারজন্য রয়েছে, অনেক অনেক শুভেচ্ছা ও আগামী দিনের সফলতার আর্শ্বিবাদ।

জানা যায়, লিতুন জিরা এবার মনিরামপুর উপজেলার খানপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে পিইসি পরীক্ষায় অংশ নেয়। লেখাপড়া শিখে মানুষের মতো মানুষ হয়ে আরও ১০ জন মানুষের মতো আত্মনির্ভরশীল হতে চায় জিরা। জন্ম থেকে দুই হাত-পা ছাড়া জন্ম নেয়া লিতুন জিরা। মুখ দিয়ে লিখেই মেধার সাক্ষর রেখেছে এই শিক্ষার্থী।

স্থানীয়রা গণমাধ্যমকে জানান, লিতুন জিরা প্রখর মেধাবী মেয়ে। হুইল চেয়ারেই বিদ্যালয়ে আসা-যাওয়া করে প্রখর মেধাবী এ-প্লাস পেয়ে লিতুন জিরা মেধার সাক্ষর রাখল। বর্তমানে হুইল চেয়ারটি নষ্ট হয়ে যাওয়ায় তা চলাচলের প্রায় অনুপযোগী হয়ে পড়েছে।

মেধাবী মেয়ে লিতুন জিরার বাবা হাবিবুর রহমান ও মা জাহানারা বেগম গণমাধ্যমকে বলেন, জন্মের পর মেয়ের ভবিষ্যৎ নিয়ে নানা চিন্তা ছিল তাদের। তারা বাবা উপজেলার এ আর মহিলা কলেজের প্রভাষক। তিনি গত ১৭ বছর ধরে ওই কলেজে চাকরি করলেও আজও কলেজটি এমপিওভুক্ত হয়নি।

লিতুন জিরা আর ১০ জন শিশুর মতো স্বাভাবিকভাবেই খাওয়া-দাওয়া, গোছল সবকিছুই করতে পারে। মুখ দিয়েই লিখে সে। তার চমৎকার হাতের লেখা যে কারো দৃষ্টি কাড়বে।

এ সময় কথা হয় লিতুনের সঙ্গে। তার একটাই ইচ্ছা, পরনির্ভর না হয়ে লেখাপড়া শিখে নিজেই কিছু করতে চাই।

লিতুন জিরার প্রধান শিক্ষক সাজেদা খাতুন বলেন, তার ২৯ বছর শিক্ষকতা জীবনে লিতুন জিরার মতো মেধাবী শিক্ষার্থীর দেখা পাননি। এককথায় সে অসম্ভব মেধাবী। শুধু লেখাপড়ায় না, সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডেও অন্যদের থেকে অনেক ভালো লিতুন।#


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


অনুসন্ধান

করোনা আপডেট

বাংলাদেশে

আক্রান্ত
সুস্থ
মৃত্যু
সূত্র: আইইডিসিআর

বিশ্বে

আক্রান্ত
সুস্থ
মৃত্যু

.