শিরোনাম :
বাসস’র টেলিফোন ইনচার্জ খালিদের মৃত্যুতে আরেফিন সিদ্দিক’র শোক ডিএসসিসির ময়লার গাড়ির ধাক্কায় নিহত বাসস কর্মীর জানাজায় মেয়র তাপস পল্লবীতে অবৈধ দখলদারদের উচ্ছেদকালে ডিএনসিসি মেয়য়ের ঘোষণা: কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না করোনায় কেড়ে নিয়েছে আফজালুর রহমানকে: সাংবাদিক নেতৃবৃন্দের শোক ডিএসসিসিতে নতুন ৩৭টি ওয়ার্ডে কমিউনিটি সেন্টার নির্মাণ হচ্ছে: মেয়র তাপসের পল্লবীতে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে ডিএনসিসির সঙ্গে পাকিস্তানিদের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া পিকে হালদারের সহযোগী সুকুমার মৃধা ও তার মেয়ের বিরুদ্ধে ৩ দিনের রিমান্ড হাইকোর্টে রিট, সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেয়ার নির্দেশনা জন্য ১৫ ফেব্রুয়ারির মধ্যে বাংলাদেশ ব্যাংক কর্মকর্তাদের তথ্য চেয়েছেন হাইকোর্ট হোয়াইট হাউস ছাড়লেন ট্রাম্প ৯ বন্দরে কেমিক্যাল টেস্টিং ল্যাব প্রতিষ্ঠার অগ্রগতি হাইকোটকে জানাবে সরকার ডিএসসিসির ময়লার গাড়ির চাপায় বাসস’এর কর্মকর্তা খালিদের মৃত্যূ নগরীতে খাল দখলমুক্ত ও বর্জ্য অপসারণ কার্যক্রম নিজস্ব অর্থায়নে হচ্ছে: মেয়র তাপস পিকে হালদারসহ ৮৩ ব্যক্তির ব্যাংক অ্যাকাউন্ট জব্ধের প্রতিবেদন হাইকোর্টে ‘আমার গ্রাম আমার শহর’ বাস্তবায়ন হচ্ছে: এলজিআরডি মন্ত্রী দুদকে, ডেএজি রুপাকে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদ ব্যাংক এশিয়ার নারী কর্মকর্তা রিনির অর্থ আত্মসাৎ, দুদকের মামলা দায়ের পাইলট রুটের পরিধিতে ঘাটারচর থেকে কাঁচপুর পর্যন্ত করা হবেঃ মেয়র তাপস দুদকের মামলায় ডিআইজি মিজানের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিলেন কর কর্মকর্তা গোল্ডেন মনিরের বিরুদ্ধে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল ১৭ ফেব্রুয়ারি
বৃহস্পতিবার, ২১ জানুয়ারী ২০২১, ১০:৫৮ অপরাহ্ন

বঙ্গবন্ধু টি-২০ কাপ চ্যাম্পিয়ন খুলনা

দূরবীণ নিউজ প্রতিবেদক:
বঙ্গবন্ধু টি-২০ কাপ চট্টগ্রামকে হারিয়ে রুদ্ধশ্বাস জয়ে চ্যাম্পিয়ন খুলনা। শুক্রবার মিরপুর শেরে বাংলা স্টেডিয়ামে রোমাঞ্চ ছড়ানো বঙ্গবন্ধু টি-২০ কাপে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে জেমকন খুলনা। আগে ব্যাট করতে নেমে খুলনা সাত উইকেটে করে ১৫৫ রান। জবাবে চট্টগ্রামের দম শেষ হয় ৬ উইকেটে ১৫০ রানে। ৭০ রানের ঝলমলে ইনিংসের সুবাদে ম্যাচ সেরার পুরস্কার জেতেন খুলনার অধিনায়ক মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ।

খেলার ধারাভাষ্যমতে, ছয় বলে জয়ের জন্য চট্টগ্রামের দরকার ১৬ রান। উইকেটে সেট দুই ব্যাটসম্যান মোসাদ্দেক ও সৈকত। টানটান উত্তেজনা। হলে হয়েও যেতে পারে। বল হাতে এলেন খুলনার শহিদুল ইসলাম। প্রথম দুই বলে এলো তিন রান।

পরের দুই বলেই তিনি দেখালেন চমক। স্লোয়ার দুই ফুল টস ডেলিভারিতে আউট করলেন মোসাদ্দেক ও সৈকত আলীকে। শেষ দুই বলে দরকার তখন ১৩। পঞ্চম বলে আসে এক রান। শেষ বলে ছক্কা। ৫ রানের রুদ্ধশ্বাস জয় খুলনার। উন্মত্ত উল্লম্ফনে ব্যস্ত মাহমুদুল্লাহ, মাশরাফি, ইমরুল কায়েসরা।

মিরপুর শেরে বাংলা স্টেডিয়ামে রোমাঞ্চ ছড়ানো বঙ্গবন্ধু টি-২০ কাপে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে জেমকন খুলনা। আগে ব্যাট করতে নেমে খুলনা সাত উইকেটে করে ১৫৫ রান। জবাবে চট্টগ্রামের দম শেষ হয় ৬ উইকেটে ১৫০ রানে। ৭০ রানের ঝলমলে ইনিংসের সুবাদে ম্যাচ সেরার পুরস্কার জেতেন খুলনার অধিনায়ক মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ।

জয়ের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে শুরুটা বরাবরের মতোই ভালো ছিল চট্টগ্রামের। সৌম্য ও লিটনের ব্যাটিং ছিল ধীর-স্থির গোছের। লিটন ছন্দে থাকলেও সৌম্য ছিলেন অনেকটা অস্থির। তার মাশুল তিনি গোনেন দ্রুতই।

ওপেনিং জুটি ভাঙে ২৬ রানে। শুভাগতর বলে বোল্ড সৌম্য। ১০ বলে এক ছক্কায় তার রান ১২। অথচ এক বল আগেই তিনি নতুন জীবন পেয়েছিলেন। তার দেয়া ক্যাচ লং অনে নিতে পারেননি ইমরুল কায়েস। নতুন জীবনের সদ্বব্যবহার করতে পারেননি সৌম্য।

কিছুক্ষণ পর দলীয় অধিনায়ক মোহাম্মদ মিঠুনও আউট। আল আমিনের বলে তিনি এলবিডব্লিউ। ৫ বলে ৭ রানে ফেরেন তিনি। ভালো খেলতে থাকা লিটন দাস এদিন বিরূপ ভাগ্যের শিকার। বোল্ট গতিতে দৌড়েও তিনি রান আউট। কৃতিত্বটা বেশি পাবেন বোলার শহিদুল ইসলাম। বল করে ফিরতি বল যেভাবে তিনি শুয়ে পড়ে ছুড়েছিলেন, তা প্রশংসনীয়।

২৩ বলে সমান ২৩ রান করেন লিটন। তার ইনিংসে ছিল মাত্র দুটি চারের মার। চতুর্থ উইকেট জুটিতে চট্টগ্রামের আশা জাগান সৈকত আলী ও শামসুর রহমান। এই জুটি দলকে টেনে নিয়ে যান ৯৬ রানা অবধি। ২১ বলে তিন চারে ২৩ রানে হাসান মাহমুদের বলে ফেরেন শামসুর।

পঞ্চম উইকেটে জুটি বাধেন দুই সৈকত; মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত ও সৈকত আলী। ১৬ ওভারে চট্টগ্রামের রান তখন ১০৯/৪। বলের চেয়ে রান দ্বিগুণ। শেষ চার ওভারে দরকার ৪৭ রান। ১৭তম ওভারে আসে মাত্র সাত রান। এরপর ১৮ বলে দরকার ৪০ রান। ১২ বলে ২৯। ৬ বলে ১৬। শেষ অবধি এই সমীকরণ মেলাতে পারেননি দুই সৈকত। শেষ ওভারে শহিদুল দেখান তার খেল।

চট্টগ্রামের হয়ে ৪৫ বলে চার ছক্কায় সর্বোচ্চ ৫৩ রান করেন সৈকত আলী। ১৪ বলে ১৯ রান করেন মোসাদ্দেক। বল হাতে খুলনার হয়ে শহিদুল দুটি, শুভাগত, আল আমিন ও হাসান মাহমুদ একটি করে উইকেট নেন।

এর আগে টস হেরে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই উইকেট হারায় খুলনা। নাহিদুলের ইনিংসের প্রথম বলেই ছক্কা হাকাতে গিয়ে মোসাদ্দেকের তালুবন্দী ওপেনার জহুরুল ইসলাম।

ওয়ান ডাউনে নেমে ইমরুল কায়েস শুরুর হতাশা দূর করার চেষ্টা করেন। দারুণ এক ছক্কা হাকিয়ে ভালো কিছুর আভাসও দেন। কিন্তু টিকতে পারেননি। নাহিদুলের বলে সৌম্যর হাতে ধরা অভিজ্ঞ ওপেনার। ৮ বলে ৮ রান করে যান তিনি।

বিপর্যয় রোধ করেছেন অধিনায়ক মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ ও জাকির হোসেন। এই জুটি দলকে নিয়ে যান ৪৩ রান অবধি। ২০ বলে দুই চার ও এক ছক্কা ২৫ রানে ফেরেন জাকির। আরিফুলের সাথে দারুণ রসায়ন ছিল মাহমুদুল্লাহর। সময়ের ব্যবধানে অল্প হলেও তা দলীয় স্কোরে প্রভাব রাখে। আরিফুলের বিদায়ের পর খুলনার হয়ে যা করার সেটি করেছেন মাহমুদুল্লাহই। ২৩ বলে দুই চারে ২১ রান করেন আরিফুল।

অধিনায়কের ভুলে রান আউট শামীম। ১২ বলে শুভাগতর সংগ্রহ ১৫ রান। জ্বলে উঠতে পারেননি মাশরাফি। যার ব্যাটে দুই চারটি ছক্কা-চার দেখতে চেয়েছিল সবাই। ৬ বলে ৫ রানে ফেরেন নড়াইল এক্সপ্রেস।

শেষ পযন্ত ব্যাট হাতে অপরাজিত ছিলেন মাহমুদুল্লাহ। মোস্তাফিজের শেষ ওভারে দুই চার ও এক ছক্কা মেরে দলকে দেড় শ’ পার করেন তিনি। ৪৮ বলে ৭০ রানের দারুণ ইনিংস আসে তার ব্যাট থেকে। আটটি চার ও দুটি ছক্কা হাকান তিনি।

বল হাতে চট্টগ্রামের হয়ে নাহিদুল ও শরিফুল দুটি করে উইকেট নেন। মোসাদ্দেক ও মোস্তাফিজ পান একটি করে উইকেট।#


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


অনুসন্ধান

করোনা আপডেট

বাংলাদেশে

আক্রান্ত
৫৩০,২৭১
সুস্থ
৪৭৫,০৭৪
মৃত্যু
৭,৯৬৬
সূত্র: আইইডিসিআর

বিশ্বে

আক্রান্ত
৯৬,১১৮,০০৯
সুস্থ
৫২,৭০৯,৫২৭
মৃত্যু
২,০৫৬,২৩১

.