শিরোনাম :
দেশে নির্বাচন, করোনার চেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ : সিইসি নুরুল হুদা ‘রপ্তানি মুখি কৃষি উন্নয়নে সীড এসোসিয়েশন কাজ করে যাচ্ছে’ বিএনপিকে নির্বাচনে বিজয়ের গ্যারান্টি দিলে, এই কমিশন নিরপেক্ষ হবে :কাদের রানী এলিজাবেথের ৯৫তম জন্মদিনে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী স্বাস্থ্য খাত নিয়ে টিআইবি’র প্রতিবেদনে মিথ্যাচার হয়েছে: জাহিদ মালেক বিএনপিতে বিভেদ -গ্রুপিং আছে : মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর করোনায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ছুটি ৩০ জুন পর্যন্ত বৃদ্ধি সারাদেশে বঙ্গোপসাগরের লঘুচাপে বৃষ্টিপাত বাড়তে পারে করোনায় সারাবিশ্বে ৩৮ লাখ ২৮২ জনের মৃত্যু ঢাকা, সিলেট ও কুমিল্লায় উপ নির্বাচনে নৌকার ৩ প্রার্থী তুরস্কে ৬ মিনারের বৃহত্তম মসজিদটি পর্যটকদের আকৃষ্ট করছে একদিনে সারাদেশে করোনায় আরো ৪৩ জনের মৃত্যু করোনা পরিস্থিতিতে ২০ বিশ্ববিদ্যালয়ের গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষা স্থগিত হয়েছে কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগের কর্মকর্তাদের ‘লাল তীর গবেষণা ও উন্নয়ন কেন্দ্র’ পরিদর্শন বিএনপির নেতাদের মুখে গণতন্ত্রের কথা শোভা পায় না: হানিফ বিএনপি যুদ্ধংদেহী মনোভাব দেখাচ্ছে : ওবায়দুল কাদের মানুষকে আশাবাদী করতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকায় রয়েছেন গণমাধ্যমকর্মীরা : তথ্যমন্ত্রী স্বেচ্ছাসেবক দলের নেতাকর্মীদের আরো ত্যাগ স্বীকার করতে হবে : সোহেল কেরানীগঞ্জে শিশু কিশোরদের সাথে বিএনপির নেতা প্রকৌশলী ইশরাক নিপুণ রায় চৌধুরীকে অমানবিক নির্যাতন করা হচ্ছে: গয়েশ্বর চন্দ্র রায়
রবিবার, ১৩ জুন ২০২১, ১২:১৩ অপরাহ্ন

মানসম্পদ উন্নয়নে প্রতিবন্ধক দুর্নীতি , মাদক ও সন্ত্রাস : দুদক চেয়ারম্যান

দূরবীন নিউজ প্রতিবেদক:  দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ বলেছেন, দুর্নীতি , মাদক ও সন্ত্রাস একই সূত্রে গাঁথা। তিনি বলেন, মাদকের বিস্তৃতি নিয়ে আমি ব্যক্তিগতভাবে উদ্বিগ্ন। কারণ মাদক সমাজকে ধ্বংস করে। এটি রাষ্ট্রের মানসম্পদ উন্নয়নের অন্যতম প্রতিবন্ধক দুর্নীতি , মাদক ও সন্ত্রাস ।

দুদক চেয়ারম্যান বলেন, একবিংশ শতাব্দীর চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা এবং সর্বোচ্চ ডেমোগ্রাফিক ডিভিডেন্ড পেতে হলে সক্ষম মানবসম্পদের কোনো বিকল্প নেই।

বুধবার (২০ নভেম্বর) রাজধানীর সেগুনবাগিচায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের প্রধান কার্যালয়ে ওই দপ্তরের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সাথে ত্রৈমাসিক সমন্বয় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে দুদক চেয়ারশ্যান এসব কথা বলেন্।
মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মোঃ জামাল উদ্দীন আহমেদের সভাপতিত্বে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন অতিরিক্ত মহাপরিচালক সঞ্জীয় কুমার চক্রবর্তী প্রমুখ।

ইকবাল মাহমুদ বলেন, মাদক ব্যবসায়ী অনেকে গডফাদারদের অবৈধ সম্পদ অনুসন্ধানে করছে দুদক । মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর থেকে পাঠানো তালিকা অনুযায়ী দুদক ওই গডফাদারদের অবৈধ সম্পদের অনুসন্ধান করছে। অনেকের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। অনেকের বিরুদ্ধে অনুসন্ধান করা হচ্ছে।

তিনি বলেন, মাদকাসক্ত মানুষ দিয়ে দেশ এগোবে না। অতিসম্প্রতি মাদকবিরোধী অভিযানে দেশে মাদকের ব্যপকতা কিছুটা হলেও কমেছে জানিয়ে দুদক চেয়ারম্যান বলেন, এখনও প্রায়শ সড়কে দেখা যায় পথশিশুরা পলিথিনে করে ড্যান্ডির মাধ্যমে সৃষ্ট ধোয়ায় নেশা করছে।

দুদক চেয়ারম্যান বলেন, এদেরকে চিহ্নিত করে সমাজ কল্যাণে বিভাগের মাধ্যমে পুনর্বাসন অথবা সরকারি মাদকাসক্ত নিরাময় কেন্দ্রের মাধ্যমে পুনর্বাসনের ব্যবস্থা গ্রহণ করা যেতে পারে। কারণ এই শিশুদের দেখে অন্য শিশুরাও মাদক বা নেশার প্রতি প্রলুব্ধ হতে পারে।

তিনি মাদক দ্রব্য ব্যবহারের কুফল নিয়ে দেশের ভবিষ্যৎ প্রজন্ম তথা স্কুল, কলেজ ও বিশ^বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মধ্যে ব্যাপক সচেতনতামূলক কার্যক্রম পরিচালনারও অনুরোধ জানান।

তিনি বলেন, মাদকদ্রব্য অধিদপ্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ব্যবস্থাপনায়ও কিছুটা দুর্বলতা রয়েছে। এই প্রতিষ্ঠানটির কতিপয় কর্মকর্তা-কর্মচারীর অনিয়ম-দুর্নীতি নিয়ে সমাজে অনেক আলোচনা-সমালোচনা রয়েছে। কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বদলি-নিয়োগ নিয়ে প্রশ্ন রয়েছে । অনেকের বিরুদ্ধে মাদক ব্যবসায়ীদের সাথে সখ্যতারও অভিযোগ রয়েছে । এটা দুর্ভাগ্যজনক।

দুদক চেয়ারম্যান বলেন, নিজেদের মাইন্ডসেট পরিবর্তন না করতে পারলে মাদক নিয়ন্ত্রণ করা কঠিন হয়ে পড়বে। মাদকাসক্তি নিরাময় কেন্দ্রের লাইসেন্স প্রদানে অনিয়ম-দুর্নীতির খবর পাওয়া যায়। আবার এসব কেন্দ্রের বিরুদ্ধেও চিকিৎসার নামে অসহায় পরিবারগুলোর কাছ থেকে অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ রয়েছে। এসব বন্ধে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরকে যথাযথ ব্যবসস্থা গ্রহণের অনুরোধ জানান দুদক চেয়ারম্যান।

তিনি বলেন, দুর্নীতি দমন কমিশন মাদক, দুর্নীতি বা সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে সবসময় সমন্বিত উদ্যোগকে স্বাগত জানায়। মাদক্র দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর মনে করলে – কমিশনের সাথে সমঝোতা স্মারকও স্বাক্ষর করতে পারে। আমরাও এই অপরাধ দমনে সাহায্য করতে পারি। প্রয়োজনে সমন্বিত অভিযান পরিচালনা করা যেতে পারে।

তিনি বলেন, আমাদের সীমান্ত দিয়েই মাদক দ্রব্য দেশে আসছে। তাই সীমান্তে যারা এসব নিয়ন্ত্রণে দায়িত্ব পালন করেন তারা সঠিকভাবে দায়িত্বপালন করবেন । সবাইকে মনে রাখতে হবে দেশের কোথায়- কে- কীভাবে দায়িত্বপালন করেন এ তথ্য কমিশনের কাছে চলে আসে। আমরা অনেক তথ্য পাচ্ছি। দুর্নীতির মাধ্যমে যারা অবৈধ সম্পদ অর্জন করেন তাদের তথ্যও পাওয়া যাচ্ছে। অনেকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

তিনি মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের কর্মকর্তাদের উদ্দেশ্যে বলেন, আপনারা মাদক নিয়ন্ত্রণে কাজ করছেন। আপন্রাাই জানেন কারা মাদক ব্যবসার মাধ্যমে অবৈধ সম্পদ অর্জন করছেন। আপনারা প্রয়োজনে নিজেদের নাম গোপন রেখে মাদকব্যবসায়ীদের অবৈধ মাদক ব্যবসা ও অবৈধ সম্পদ অর্জনের তথ্য কমিশনে পাঠান। আপনাদের নাম পরিচয় গোপন রাখা হবে। আমরা শুধু তথ্য চাই ।

তথ্য পেলেই অপরাধীদের আইন-আমলে নিয়ে আসা হবে। আমাদের সন্তানদের মাদকসেবী বানাবেন -এমন দুবৃত্তদের বিরুদ্ধে এমন ব্যবস্থা নেওয়া হবে যাতে তারা তাদের এই অবৈধ সম্পদ ভোগ করতে না পারেন। দুর্নীতি ও মাদক নির্মূলে আমরা সবাই একত্রে সমন্বিতভাবে কাজ করতে চাই। এখানে আপসের সুযোগ নেই। #


আপনার মতামত লিখুন :

Deprecated: Theme without comments.php is deprecated since version 3.0.0 with no alternative available. Please include a comments.php template in your theme. in /home/courentn/public_html/wp-includes/functions.php on line 5061

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


অনুসন্ধান

করোনা আপডেট

বাংলাদেশে

আক্রান্ত
৮১৫,২৮২
সুস্থ
৭৫৫,৩০২
মৃত্যু
১২,৯১৩
সূত্র: আইইডিসিআর

বিশ্বে

আক্রান্ত
১৭৫,৩৬৮,৯৪৩
সুস্থ
১১৩,৪৮৬,৫৮৫
মৃত্যু
৩,৭৯১,৭১২

.