শিরোনাম :
পিকে হালদার বেনাপোল দিয়ে পালিয়েছে হাইকোর্টকে তথ্য দিল এসবির ইমিগ্রেশন শাখা হাইকোর্টের নির্দেশ; লেখক মুশতাকের মৃত্যুর বিষয়টি হলফনামা আকারে দাখিল করুন বিএনপি নেতা আমীর খসরু মাহমুদকে দুদকে জিজ্ঞাসাবাদ প্রেসক্লাবের সামনে সংঘর্ষের মামলায় ৫ দিনের রিমান্ডে ছাত্রদলের ১৩ জন ৯ মার্চ, আইনজীবী ছাড়া গভর্নর. দুদক ও বিএসইসি চেয়ারম্যানের সরাসরি বক্তব্য শুনবেন হাইকোর্ট সাভারে রানা প্লাজার সোহেল রানার জামিন প্রশ্নে হাইকোর্টের রুল জারি অবৈধভাবে বালু ভরাটে ব্যবহৃত ২,৮০০ ফুট লোহার পাইপ জব্দ করেছে ডিএসসিসি ডিএনসিসিতে ৭দিনের মশক নিধন অভিযানে ৮৯টি মামলায় ১১ লাখ টাকা জরিমানা আদায় ১১ মার্চ, স্বাস্থ্য অধিদফতরের গাড়িচালক মালেকের বিরুদ্ধে অস্ত্র মামলায় চার্জ গঠন ডিজিটাল আইনের মামলা, কার্টুনিস্ট কিশোরের রিমান্ড আবেদন খারিজ হাইকোর্ট,আজিজ কো-অপারেটিভের চেয়ারম্যানের জামিন আবেদন গ্রহণ করেননি ৩০ মার্চের মধ্যে, সুইস ব্যাংকসহ বিদেশে পাচার হওয়া অর্থ ফেরাতে হাইকোর্টের রুলের জবাব দিতে হবে স্কুল কলেজ ও বিশ্ব বিদ্যালয়ের শিক্ষক- কর্মচারীকে টিকা নিতে হবে: প্রধানমন্ত্রী ডিজিটাল আইন হয়েছে, ডিজিটাল নিরাপত্তাও দেওয়া হবে: প্রধানমন্ত্রী ৩০ মার্চ থেকে স্কুল-কলেজ খুলে দেয়ার সিদ্ধান্ত ‘শাহবাগে সংঘর্ষে মামলায় ৭ জনকে জেলগেটে ১দিনে জিজ্ঞাসাবাদের অনুমতি’ এখন পানির জন্য দেশে মিছিল মিটিং হয় না: এলজিআরডি মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার: ‘চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের জন্য ডিজিটাল সংযুক্তির প্রস্তুতি সম্পন্ন’ লেখক মুশতাকের দাফন আজিমপুর কবরস্থানে ঢাকা বার নির্বাচনে সভাপতিসহ আ’লীগের ১৫. সম্পাদক বিএনপির ৮জন বিজয়ী
মঙ্গলবার, ০২ মার্চ ২০২১, ০৪:৫৮ পূর্বাহ্ন

তোতলামি সমস্যা কাটানোর উপায়

কথা বলতে গিয়ে আটকে যায়, এক কথা বার বার বলে অথবা একটা শব্দ টেনে অনেক লম্বা করে বলতে থাকে, এমন অনিচ্ছাকৃত ভাবকে বলা হয় তোতলামি। কথা বলার এই প্রতিবন্ধকতা এক ধরনের শারীরিক ব্যাধি। এরা মানুষজনের মধ্যে যেতে চান না৷ গুটিয়ে থাকেন৷ তবে মেয়েদের তুলনায় ছেলেদের মধ্যে তোতলামি ভাব বেশি দেখা যায়।

যাদের এই সমস্যা রয়েছে তাদের মুখ থেকে শব্দ বের হতে সময় নেয়৷ একটা শব্দ বা কথা বার বার বেরুতে থাকে৷ তোতলারা সাধারণত ফোনে কিংবা অন্য মানুষের সঙ্গে কথা বলতে চান না, কাউকে কিছু জিজ্ঞেস করতে চান না৷ তারা একলা পথ চলতে পছন্দ করেন। আবার এই সমস্যার ভূক্তভোগী কিছু কিছু শব্দ বা পরিস্থিতিও এড়িয়ে চলেন৷

এর বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যায় নিওরোলজিস্টরা বলেন, কথা বলতে গেলে যেসব অঙ্গ প্রত্যঙ্গ প্রয়োজন যেমন জিব, তালু, গলার পেশি ইত্যাদি ঠিকমতো বশে থাকে না বলে তোতলাতে হয়। আবার মস্তিষ্কের বেশ কয়েকটি অংশ থেকে মানুষের কথা বলা নিয়ন্ত্রিত হয়। আর এসব অংশে সমস্যা থাকলেও কথা বলা সংক্রান্ত বিভিন্ন ধরনের রোগ হতে পারে।

তোতলামি জন্মগত সমস্যা নয়। তোতলামির একাধিক কারণ রয়েছে। জেনেটিক কারণে তোতলামি সমস্যা দেখা দিতে পারে। বাবা-মায়ের যদি তোতলামি সমস্যা থেকে থাকে সে ক্ষেত্রে সন্তানেরও হতে পারে। তোতলামি নিউরোজেনিক কারণেও হতে পারে।

ছোটবেলায় যদি কেউ মাথায় গুরুতর আঘাত পায়, তা থেকেও কথা বলার সমস্যা দেখা দিতে পারে। শিশুকে ছোটবেলায় যদি কথা বলার জন্য বেশি চাপ সৃষ্টি করা হয়, সেক্ষেত্রে শিশুটির মধ্যে তোতলামো ভাব আসতে পারে। আবার বেশি বয়সেও তোতলামি সমস্যা দেখা দিতে পারে।

বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা বলেন, সঠিক চিকিৎসা পদ্ধতি মেনে চললে তোতলামি সম্পূর্ণ ভালো হয়। তবে চিকিৎসা দেরিতে শুরু হলেও তোতলামো কমানো সম্ভব। তোতলামির একমাত্র চিকিৎসা হলো থেরাপী। থেরাপির তিনটি ভাগ ইন্ডিভিজুয়াল থেরাপি, গ্রুপ থেরাপি এবং কাউন্সেলিং থেরাপি। প্রথম দুটি স্পিচ থেরাপির অংশ।

স্পিচ থেরাপি এমন একটা সিস্টেম যার দ্বারা রেট অব স্পিচ কমানো হয়। এর দ্বারা ব্রিদিং প্যাটার্ন ঠিক করা হয়, মাসুল টেনশন কমানো হয় এবং মনোবল বাড়ানো হয়। পুরো কাজটা মিডভ্যাস পদ্ধতিতে কাজ করে।

এছাড়া তোতলামি কাটানোর উপায়গুলো হলো-
* নিজের তোতলামিকে ভয় না পেয়ে সমস্যাটিকে কীভাবে সামলানো যায় তা শেখা৷ এর জন্য বেশি বেশি কথা বলার চেষ্টা করা, টেলিফোনে কথা বলা, সবার সামনে বক্তব্য রাখার অভ্যাস গড়ে তোলা।

* দৈনন্দিন কাজকর্মে অসুবিধাগুলো কীভাবে কাটানো যায়, সেদিকে দৃষ্টি দেওয়া হয়৷ যেসব শব্দ বলতে গেলে আটকে যায়, সেগুলোকে পাশ কাটিয়ে অন্য শব্দ নেওয়া যেতে পারে৷

* কণ্ঠস্বর নরম করে কথা বলা৷ এইভাবে কথা বললে তোতলামিটা থাকে না৷ এ জন্যে ধীরে ধীরে চেপে কথা বলার অভ্যাস গড়ে তোলা।

* তোতলানোর সময় মস্তিষ্কের এক অংশ অন্য অংশের সমস্যা কাটাতে চেষ্টা করে৷ আর তাই গানের মাধ্যমেও তোতলামিকে আয়ত্তে আনা যায়৷ কেননা সংগীত ও গানের জগৎ থাকে মস্তিষ্কের ডান দিকে৷ আর বাঁ দিকে থাকে কথার এলাকা৷ এজন্য তোতলাদের গান গাইতে কোনো অসুবিধা হয় না৷ এভাবে নিয়মিত গানের চর্চা করলেও এক সময় তোতলামো সমস্যা কাটিয়ে ওঠা যায়।

* সন্তানের তোতলামোর উপসর্গ দেখা দিলে আগে বাবা-মা বুঝতে পারেন। সে ক্ষেত্রে তখনই নিজেদের দ্বারা কাউন্সেলিং করা প্রয়োজন। ছোটবেলা থেকে যদি নজর না দেওয়া হয় সে ক্ষেত্রে ভবিষ্যতে বড় কোন সমস্যা সৃষ্টি হতে পারে। যে কোন মানসিক চাপ তোতলামি বাড়িয়ে দিতে পারে। তাই বাবা-মাকে সব সময় সতর্ক থাকা উচিত।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


অনুসন্ধান

করোনা আপডেট

বাংলাদেশে

আক্রান্ত
সুস্থ
মৃত্যু
সূত্র: আইইডিসিআর

বিশ্বে

আক্রান্ত
সুস্থ
মৃত্যু

.