শিরোনাম :
এবার মৃত ব্যক্তির ব্যাংকের টাকার পাওনাদার নিধারণী মামলা আপিল বিভাগ হাইকোর্টের ঐতিহাসিক রায়: শিশু অপরাধীর সাজা সর্বোচ্চ ১০ বছর বনানী কবরস্থানে এইচ টি ইমাম চিরনিদ্রায় শায়িত কারা অধিদফতরের সাবেক ডিআইজির মামলায় ৩১ মার্চ সাক্ষ্য গ্রহণ এইচ টি ইমাম দেশপ্রেমের উন্মেষ ঘটিয়েছেনঃ মেয়র তাপস অযথা মামলা মোকদ্দমায় অর্থ ব্যয় না করে দেশের উন্নয়নে এগিয়ে আসুন: এলজিআরডি মন্ত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা করোনার ভ্যাকসিন নিলেন পি কে হালদারের বান্ধবীকে পুনরায় ৩ দিনের রিমান্ডে নিয়েছে দুদক ডিএনসিসির ও ডিসিসিআই স্মার্ট সিটির কাজ একত্রে করতে চায় ক্রিকেটার নাসিরের স্ত্রীর সাবেক স্বামীর রিট দায়ের ২০ কোটি টাকায় প্রকৌশলী আশরাফুলের দায়মুক্তি, দুদকের ব্যাখ্যা চায় হাইকোর্ট এইচ টি ইমামের মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর শোক এইচ টি ইমামের ইন্তেকাল অবশেষে নিখোঁজ ব্যবসায়ী আবু সাঈদ উদ্ধার হয়েছে ক্যাসিনোকান্ড ও অর্থপাচার মামলায়, ২৪ মার্চ সম্রাট-আরমানের তদন্ত প্রতিবেদন ভুয়া এনআইডি, ঢাকা ব্যাংকের অর্থ আত্মসাতের মামলায় ৫জনের রিমান্ড গ্রাহকের স্বর্ণ আত্মসাৎ মামলায়, জামিন পেলেন সমবায় ব্যাংকের চেয়ারম্যান মহি ঢাকা সিটির খালের দুই পাশে গড়ে উঠা অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হবে: এলজিআরডি মন্ত্রী ডিএমপির ট্রাফিক পুলিশের ১’শ জনকে প্রাথমিক চিকিৎসা প্রশিক্ষণ সনদ প্রদান সাংবাদিক কাশেমের ভগ্নীপতি: ব্যবসায়ী আবু সাঈদ নিখোঁজ
শুক্রবার, ০৫ মার্চ ২০২১, ১২:৩৩ অপরাহ্ন

ডিআইজি মিজান ও দুদকের বাছিরের মামলায় নৌবাহিনীর কমান্ডারের সাক্ষ্য প্রদান

ফাইল ছবি

দূরবীণ নিউজ প্রতিবেদক:

অবৈধভাবে তথ্য পাচার ও ঘুষ লেনদেনের অভিযোগে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) দায়ের করা মামলায় পুলিশের উপ-মহাপরিদর্শক (ডিআইজি) মিজানুর রহমান ও দুদক পরিচালক খন্দকার এনামুল বাছিরের বিরুদ্ধে বিচারিক আদালতে সাক্ষ্য দিয়েছেন নৌবাহিনীর কমান্ডার এম মোতাহার হোসেন।তিনি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ন্যাশনাল টেলিকমিউনিকেশন মনিটরিং সেন্টারের (এনটিএমসি) কমান্ডার পদে কর্মরত ছিলেন।

মঙ্গলবার (২৬ জানুয়ারি) দুপুরে ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৪ এর বিচারক শেখ নাজমুল আলমের আদালতে তিনি সাক্ষ্য দেন। এরপর তাকে জেরা করেন আসামিপক্ষের আইনজীবীরা। আদালত পরবর্তী সাক্ষ্য গ্রহণের জন্য ৮ ফেব্রুয়ারি দিন ধার্য করেন। এই মামলায় মোট ১৭ জন সাক্ষীর মধ্যে ১১ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ শেষ হলো।

জানা যায়, অনুসন্ধান দল ঘটনাস্থল পরিদর্শন, ঘটনার সঙ্গে প্রত্যক্ষভাবে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের বক্তব্য গ্রহণ, ন্যাশনাল টেলিকমিউনিকেশন মনিটরিং সেন্টারের (এনটিএমসি) বিশেষজ্ঞদের মতামত গ্রহণ ও পারিপার্শ্বিক বিষয়াদি পর্যালোচনা করে। তাতে দেখা গেছে, গত বছরের ১৫ জানুয়ারি মিজানুর রহমান একটি বাজারের ব্যাগে করে কিছু বইসহ ২৫ লাখ টাকা খন্দকার এনামুল বাছিরকে দেওয়ার জন্য রাজধানীর রমনা পার্কে আসেন। সেখানে কথাবার্তা শেষে একসঙ্গে বেরিয়ে শাহজাহানপুর এলাকায় যান। এরপর খন্দকার এনামুল বাছির ২৫ লাখ টাকাসহ ব্যাগটি নিয়ে তাঁর বাসার দিকে চলে যান।

একইভাবে ২৫ ফেব্রুয়ারি ডিআইজি মিজান একটি শপিং ব্যাগে করে ১৫ লাখ টাকা নিয়ে রমনা পার্কে যান। সেখানে আলাপ-আলোচনা শেষে দুজন শান্তিনগর এলাকায় চলে যান। শান্তিনগরে এনামুল বাছির ব্যাগটি নিয়ে চলে যান। দুদকের কাছে এ ঘটনার প্রযুক্তিগত প্রমাণের পাশাপাশি চাক্ষুষ সাক্ষীও রয়েছেন।

এদিকে মামলার অভিযোগে উল্লেখ রয়েছে, ডিএমপির অতিরিক্ত কমিশনার থাকাকালে বিয়ে গোপন করতে নিজের ক্ষমতার অপব্যবহার করে স্ত্রীকে গ্রেফতার করানোর অভিযোগ ওঠে ডিআইজি মিজানের বিরুদ্ধে। এছাড়া একজন সংবাদ পাঠিকাকে প্রাণনাশের হুমকি ও উত্ত্যক্ত করার অভিযোগে মিজানুরের বিরুদ্ধে বিমানবন্দর থানায় সাধারণ ডায়েরিও (জিডি) হয়।

নারী নির্যাতনের অভিযোগে ২০১৯ সালের জানুয়ারির শুরুর দিকে তাকে প্রত্যাহার করে পুলিশ সদর দফতরে সংযুক্ত করা হয়। এরপর ওই বছরের ২৪ জুন সম্পদের তথ্য গোপন ও অবৈধভাবে সম্পদ অর্জনের অভিযোগে মিজানুরের বিরুদ্ধে মামলা করে দুদক। এর অনুসন্ধান কর্মকর্তা ছিলেন দুদকের পরিচালক খন্দকার এনামুল বাছির।

জানা যায়, মামলার তদন্ত চলাকালে ডিআইজি মিজান অভিযোগ করেন, অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগ থেকে রেহাই দিতে দুদকের পরিচালক এনামুল বাছির তার কাছ থেকে ৪০ লাখ টাকা ঘুষ নিয়েছেন।

এরপর বাছিরকে সরিয়ে দুদকের আরেক পরিচালক মো. মঞ্জুর মোরশেদকে অনুসন্ধান কর্মকর্তা নিয়োগ করা হয়। ঘুষ লেনদেনের অভিযোগ খতিয়ে দেখতে ফানাফিল্যাকে প্রধান করে তিন সদস্যের দলকে অনুসন্ধানের দায়িত্ব দেয়া হয়।

এ ঘটনায় ২০১৯ সালের ১৬ জুলাই মিজান ও বাছিরের বিরুদ্ধে দুদকের সমন্বিত জেলা কার্যালয় ঢাকা-১ এ মামলাটি করেন দুদক পরিচালক শেখ মো. ফানাফিল্যা। এ মামলার তদন্ত কর্মকর্তাও তিনি।

২০২০ সালের ১৯ জানুয়ারি ঢাকা মহানগর দায়রা জজ কে এম ইমরুল কায়েসের আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন দুদকের পরিচালক শেখ মো. ফানাফিল্যা। ৯ ফেব্রুয়ারি ঢাকা মহানগর দায়রা জজ কে এম ইমরুল কায়েস আসামিদের উপস্থিতিতে এ চার্জশিট গ্রহণ করেন। ১৮ মার্চ ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৪ এর বিচারক শেখ নাজমুল আলম আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন।/


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


অনুসন্ধান

করোনা আপডেট

বাংলাদেশে

আক্রান্ত
সুস্থ
মৃত্যু
সূত্র: আইইডিসিআর

বিশ্বে

আক্রান্ত
সুস্থ
মৃত্যু

.