শিরোনাম :
এবার মৃত ব্যক্তির ব্যাংকের টাকার পাওনাদার নিধারণী মামলা আপিল বিভাগ হাইকোর্টের ঐতিহাসিক রায়: শিশু অপরাধীর সাজা সর্বোচ্চ ১০ বছর বনানী কবরস্থানে এইচ টি ইমাম চিরনিদ্রায় শায়িত কারা অধিদফতরের সাবেক ডিআইজির মামলায় ৩১ মার্চ সাক্ষ্য গ্রহণ এইচ টি ইমাম দেশপ্রেমের উন্মেষ ঘটিয়েছেনঃ মেয়র তাপস অযথা মামলা মোকদ্দমায় অর্থ ব্যয় না করে দেশের উন্নয়নে এগিয়ে আসুন: এলজিআরডি মন্ত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা করোনার ভ্যাকসিন নিলেন পি কে হালদারের বান্ধবীকে পুনরায় ৩ দিনের রিমান্ডে নিয়েছে দুদক ডিএনসিসির ও ডিসিসিআই স্মার্ট সিটির কাজ একত্রে করতে চায় ক্রিকেটার নাসিরের স্ত্রীর সাবেক স্বামীর রিট দায়ের ২০ কোটি টাকায় প্রকৌশলী আশরাফুলের দায়মুক্তি, দুদকের ব্যাখ্যা চায় হাইকোর্ট এইচ টি ইমামের মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর শোক এইচ টি ইমামের ইন্তেকাল অবশেষে নিখোঁজ ব্যবসায়ী আবু সাঈদ উদ্ধার হয়েছে ক্যাসিনোকান্ড ও অর্থপাচার মামলায়, ২৪ মার্চ সম্রাট-আরমানের তদন্ত প্রতিবেদন ভুয়া এনআইডি, ঢাকা ব্যাংকের অর্থ আত্মসাতের মামলায় ৫জনের রিমান্ড গ্রাহকের স্বর্ণ আত্মসাৎ মামলায়, জামিন পেলেন সমবায় ব্যাংকের চেয়ারম্যান মহি ঢাকা সিটির খালের দুই পাশে গড়ে উঠা অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হবে: এলজিআরডি মন্ত্রী ডিএমপির ট্রাফিক পুলিশের ১’শ জনকে প্রাথমিক চিকিৎসা প্রশিক্ষণ সনদ প্রদান সাংবাদিক কাশেমের ভগ্নীপতি: ব্যবসায়ী আবু সাঈদ নিখোঁজ
শুক্রবার, ০৫ মার্চ ২০২১, ০৩:০৯ পূর্বাহ্ন

টেকসই উন্নয়মূলক কাজ নিশ্চিতে এলজিইডি’র প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের ভিত্তিপ্রস্তর করলেন এলজিআরডি মন্ত্রী

দূরবীণ নিউজ প্রতিবেদক:
প্রকৌশলী, ঠিকাদার এবং শ্রমিকদের উন্নত প্রশিক্ষণের মাধ্যমে দেশে কাজের গুণগত মান নিশ্চিত এবং টেকসই করা সম্ভব বলে জানিয়েছেন স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী মোঃ তাজুল ইসলাম।

মঙ্গলবার (২৬ জানুয়ারি) দুপুরে মন্ত্রী গাজীপুরে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর-এলজিইডি’র ‘নির্মাণ দক্ষতা প্রশিক্ষণ কেন্দ্র’ এর ভিত্তিপ্রস্তর অনুষ্ঠানে একথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, টেকসই নির্মাণ কাজ করার জন্য প্রশিক্ষিত প্রকৌশলী, ঠিকাদার এবং শ্রমিক প্রয়োজন। প্রকৌশলীদের প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা থাকলেও ঠিকাদার এবং শ্রমিকদের প্রাতিষ্ঠানিক কোনো শিক্ষা বা প্রশিক্ষণ থাকে না। সে কারণে কাজের গুণগত মান নিয়ন্ত্রণ নিশ্চিত এবং টেকসই করা সম্ভব হয় না।

এই বিষয়ে অনুধাবন করেই এলজিইডির অধীনে একটি প্রশিক্ষণ সেন্টার নির্মাণ করার নির্দেশনা দেয়া হয় জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, এখান থেকে প্রশিক্ষণ গ্রহণের পর গ্রাম অঞ্চলের অদক্ষ শ্রমিকের প্রশিক্ষিত করা সম্ভব হবে এবং এলজিইডি নির্মিত অবকাঠামোসমূহের গুণগত মান ও স্থায়ীত্ব বৃদ্ধি পাবে পাশাপাশি আত্মকর্মসংস্থান তৈরি হবে।

মন্ত্রী বলেন, যে ঠিকাদার সিডিউল মেনে নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে মানসম্মত ও টেকসই কাজ করবে সেই ঠিকাদারকে আরো বেশি কাজ দেওয়া হবে। আর যারা নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে কাজ করতে পারবে না অথবা নিম্নমানের কাজ করবে তাদেরকে শুধু কালো তালিকাভুক্ত নয় তাদের বিরুদ্ধে সবধরনের আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে। ডিজাইন বহির্ভূত কেউ কোনো কাজ করলে তাকে চিহ্নিত করে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে জানিয়ে তিনি এ বিষয়ে সাংবাদিকসহ সকলের সহযোগিতা কামনা করেন।

স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর-এলজিইডির কাজের গুণগত মান নিয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, এলজিইডি ইতোপূর্বে যেসব রাস্তা-ঘাট, ব্রিজ-কালভার্ট করেছে দেশের আর্থিক অবস্থা বিবেচনায় সেগুলো ‘লো কস্টে’ করা হয়েছে।

স্থানীয় সরকার মন্ত্রীর দায়িত্ব গ্রহণের পর মানসম্মত এবং টেকসই কাজ করার জন্য ডিজাইন পরিবর্তন করা হয়েছে এবং ‘ইস্টিমেট’ বাড়ানো হয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন এর ফলে এখন থেকে দেশে আর কোনো নিম্নমানের কাজ হবে না। এলজিইডির অধীনে সকল কর্মকর্তা-কর্মচারী দেশের উন্নয়নের স্বার্থে টেকসই কাজ করার বিষয়ে অত্যন্ত আন্তরিক এবং প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।

ট্রেনিং সেন্টারে আসার পূর্বে গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের চলমান কার্যক্রম পরিদর্শন করা নিয়ে সাংবাদিকের অপর এক প্রশ্নের জবাবে মোঃ তাজুল ইসলাম বলেন, এলাকার মানুষের সহযোগিতা নিয়ে রাস্তা প্রশস্তকরণসহ যে সকল উন্নয়ন কাজ মেয়র করছেন তা অত্যন্ত প্রশংসনীয়। মেয়র মোঃ জাহাঙ্গীর আলম গাজীপুরের এবং নগরবাসীর জীবনমান উন্নয়নে আন্তরিকতার সহিত দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন এবং সেটা অব্যাহত থাকবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

ভিত্তিপ্রস্তর অনুষ্ঠানে গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মোঃ জাহাঙ্গীর আলম, স্থানীয় সরকার বিভাগের অতিরিক্ত সচিব মেজবাহ উদ্দিন, এলজিইডির প্রধান প্রকৌশলী মোঃ আব্দুর রশিদ খান এবং এলজিইডির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।/প্রেস বিজ্ঞপ্তি


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


অনুসন্ধান

করোনা আপডেট

বাংলাদেশে

আক্রান্ত
সুস্থ
মৃত্যু
সূত্র: আইইডিসিআর

বিশ্বে

আক্রান্ত
১১৫,০১৫,৪৬৯
সুস্থ
৬৫,১১৭,৬১২
মৃত্যু
২,৫৫৭,৬২৫

.