শিরোনাম :
সাংবাদিক রকিবুলের মায়ের মৃত্যুতে ডিআরইউ’র শোক করোনায় সাংবাদিক হাসান শাহরিয়ারের মৃত্যুতে ডিআরইউ’র শোক করোনায় পরিবেশ অধিদপ্তরের ডিজি রফিকের মৃত্যুতে তথ্যমন্ত্রীর শোক বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলায় খুনিদের স্থান নেই : প্রধান বিচারপতি খাদ্য সচিব নাজমানারা করোনায় আক্রান্ত মুন্সিগঞ্জে বিস্ফোরণে পৌর মেয়রের স্ত্রীর মৃত্যু তিন সৈন্যের শিরোশ্ছেদ সৌদিতে ১৯ বিক্ষোভকারীকে মৃত্যুদণ্ড দিল মিয়ানমার আদালত করোনায় একদিনে ৭৭ জনের মৃত্যু,নতুন শনাক্ত ৫,৩৪৩ জন অরাজকতা সৃষ্টির চেষ্টা করলে কঠোর ব্যবস্থা নিবেন: আইনমন্ত্রী ১৫ এপ্রিল বুয়েটে ভর্তি পরীক্ষার আবেদন শুরু দুর্নীতিবাজরা দুদক আতঙ্কে, আর দুদক করোনা আতঙ্কে, পরিচালকসহ আক্রান্ত-২৩ টিকার দ্বিতীয় ডোজ নিলেন ডিএনসিসির সাবেক ভারপ্রাপ্ত মেয়র জামাল মোস্তফা করোনা টিকার দ্বিতীয় ডোজ নিয়েছেন সাঈদ খোকন ৩০ মে, ‘শিশুবক্তা’ রফিকুলের মতিঝিল থানার মামলার তদন্ত প্রতিবেদন ব্রিটেনের প্রিন্স ফিলিপ আর নেই একদিনে দেশে করোনায় আরো ৬৩ জনের মৃত্যু,নতুন শনাক্ত ৭,৪৬২ রোহিঙ্গাদের দায়িত্ব শুধু বাংলাদেশের নয়: জন কেরি করোনায় এপর্যন্ত ১,৪৩২ আনসার আক্রান্ত
রবিবার, ১১ এপ্রিল ২০২১, ০৭:৩৬ পূর্বাহ্ন

কবিগুরুর ১৫৯তম জন্মজয়ন্তী ; রবীন্দ্রনাথের সৃষ্টি মানুষের মনে সাহস জোগায় : বাংলাদেশ ন্যাপ

দূরবীণ নিউজ প্রতিবেদক :
বাংলা সাহিত্যের অহংকার কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের জন্মজয়ন্তীতে গভীর শ্রদ্ধা জানিয়ে বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি-বাংলাদেশ ন্যাপ চেয়ারম্যান জেবেল রহমান গানি ও মহাসচিব এম. গোলাম মোস্তফা ভুইয়া বলেন, সমগ্র পৃথিবী আজ ধুঁকছে মহামারী করোনায়। এই সময়ে কবিগুরুর গান, কবিতা, সাহিত্য মানুষের মনে সাহস জোগায়, মনকে শান্ত করে।

শুক্রবার (৮ মে/২৫ বৈশাখ) বিশ্বকবি কবিগুরু রবিন্দ্রনাথ ঠাকুরের ১৫৯তম জন্মজয়ন্তিতে গণমাধ্যমে প্রেরিত এক বাণীতে নেতৃদ্বয় এসব কথা বলেন।

তারা বলেন, রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর বাংলা সাহিত্য তো বটেই, গোটা পৃথিবীর সাহিত্য অঙ্গনকে আলোকিত করেছিলেন। পৃথিবীর পূর্বপ্রান্তের সেরা দার্শনিক হিসেবে যাকে স্বীকৃতি দেওয়া হয় এবং বিখ্যাত নোবেল বিজয়ী কবি পাবালো নেরুদার মতো মানুষও যার কবিতা নকল করে ধন্য হয়েছিলেন। সাহিত্যের এমন কোন শাখা নেই যেখানে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের বিচরণ নেই।

বাংলা ভাষা ও সংস্কৃতি তার সারা জীবনের কর্মে সমৃদ্ধ হয়েছে। তিনি বিশ্বের একমাত্র কবি যিনি দুটি দেশের জাতীয় সঙ্গীতের রচয়িতা। বাংলাদেশের জাতীয় সঙ্গীত আমার সোনার বাংলা এবং ভারতের জাতীয় সঙ্গীত জন গণ মন উভয়টির রচয়িতাই রবীন্দ্রনাথ। বলা যায় তাঁর হাতে বাঙ্গালীর ভাষা ও সাহিত্য, শিল্পকলা ও শিল্প চেতনা নতুনভাবে নির্মিত হয়েছে। তার রচিত গানগুলোর অন্তর্নিহিত তাৎপর্য আলাদা। আজকে পৃথিবীর অনেক দেশেই রবীন্দ্র সঙ্গীতকে ব্যবহার করা হচ্ছে সাইকোথেরাপির কাজে।

ন্যাপ নেতৃদ্বয় বলেন, রবীন্দ্রনাথ কথিত ‘হিংসায় উন্মত্ত পৃথ্বী’র কোনো পরিবর্তন ঘটেনি তার মৃত্যুর প্রায় ৮০ বছর পরও। বিশ্বভুবন এখন সাম্রাজ্যবাদী শাসকদের হাতের মুঠোয়। এসব দুর্বৃত্তপনায় শক্তিমান বাধা দূরে থাক, প্রতিবাদের সাহস রাজনৈতিক ভুবনে বা রাষ্ট্রগুলোর নেই। জাতিসংঘ এ ক্ষেত্রে পরাশক্তির তাঁবেদার। ক্ষেত্রবিশেষে তাদের স্বার্থসিদ্ধির কৌশলী-কুশলী সহায়ক। বর্তমানে এমন এক বিশ্ব-পরিস্থিতি লক্ষ্য করে উদ্বিগ্ন শুদ্ধ গণতন্ত্রী ও প্রগতিবাদী ঘরানার মানুষ।

তারা আরো বলেন, রাজনৈতিক-রাষ্ট্রনৈতিক বিচারে রবীন্দ্রনাথ জাতীয়তাবাদী চেতনায় উদ্বুদ্ধ পশ্চিমা রাষ্ট্রবিশেষ এবং প্রাচ্য দেশীয় জাপানের আধিপত্যবাদী আগ্রাসনের তীব্র সমালোচনা করেও প্রবন্ধ রচনা করেন। ফলে ক্ষুব্ধ হয়েছিল ইঙ্গ-মার্কিন সাম্রাজ্যবাদ ও জাপানি ফ্যাসিবাদ। এ ক্ষোভের প্রকাশ ঘটেছিল কবির ওইসব দেশ সফরে; সরকারি এবং বেসরকারি পর্যায়ে, এমনকি সংস্কৃতি মহলের আচরণে। তিনি শুধু আধিপত্যবাদী বাহিনীর অন্যায়ের বিরুদ্ধে প্রতিবাদই করেননি, সাম্রাজ্যবাদের সমর্থক কবি-বুদ্ধিজীবীদের অন্যায্য আচরণের বিরুদ্ধেও ধিক্কার জানিয়েছেন কঠোর ভাষায়।

নেতৃদ্বয় বলেন, সাংস্কৃতিক ভুবনের পরাজিত মনোবৃত্তি বিশ্ব কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের কাঙ্ক্ষিত ছিল না। বর্তমানে আমাদেরও কাঙ্ক্ষিত নয়, কাঙ্খিত হতে পারে না। দেশে-দেশে জনতা জেগে উঠুক অন্যায়-অবিচারের বিরুদ্ধে, প্রতিবাদ উচ্চারিত হোক নিযুত কণ্ঠে। কারণ বর্তমান বিশ্বে প্রভুত্ববাদ তথা সাম্রাজ্যবাদ এক বড় আপদ। সাম্রাজ্যবাদ ও আধিপত্যবাদ কখনোই বিশ্বমানবের স্বার্থের অনুকূল ছিল না, এখনও নয়। তাই এর বিরুদ্ধে তথা আধিপত্যবাদের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ সাংস্কৃতিক-রাজনৈতিক প্রতিবাদ গড়ে তোরাই হোক রবীন্দ্র জয়ন্তীর প্রত্যয়। # পেস বিজ্ঞপ্তি


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


অনুসন্ধান

করোনা আপডেট

বাংলাদেশে

আক্রান্ত
৬৭৮,৯৩৭
সুস্থ
৫৭২,৩৭৮
মৃত্যু
৯,৬৬১
সূত্র: আইইডিসিআর

বিশ্বে

আক্রান্ত
১৩২,৯২৪,৮৭৩
সুস্থ
৭৫,৬৪৮,৪৩৭
মৃত্যু
২,৮৮৫,০৮২

.