শিরোনাম :
ডিএনসিসিতে মোবাইল কোর্টের ৩ লাখ ১২ হাজার টাকা জরিমানা প্রথম আলোর রোজিনাকে সচিবালয়ে আটকে রেখে পুলিশে হস্তান্তর, সাংবাদিকদের প্রতিবাদ হঠাৎ রাজধানীর পান্থ প্লাজায় আগুন নারায়ণগঞ্জে বাসা ভাড়া নিয়ে মালিকের স্ত্রীকে খুন, স্বর্ণালঙ্কার লুটকারী ৪ জন গ্রেফতার ইসরাইলের বর্বরোচিত হামলার বিরুদ্ধে আইনি পদক্ষেপ চেয়ে ঢাকায় মানববন্ধন বঙ্গবন্ধুর পরিবারের সদস্যদের নিরাপত্তায় এসএসএফ আইনের খসড়া অনুমোদন ‘গ্রেফতার না করলে ,সিবিআই দফতর ছাড়াবে না মমতা’ করোনাভাইরাসের ৪ ধরন বাংলাদেশে শনাক্ত ইসরাইলের আগ্রাসী তৎপরতা বন্ধে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের প্রতি ওআইসি’র আহ্বান নির্বিচারে ইসরায়েইলের হামলা যুদ্ধাপরাধের শামিল: মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী ইসরাইলি বাহিনীর হামলায় গাজায় নারী ও শিশুরা বেশি মারা যাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্রের সমর্থনে ইসরায়েলি বাহিনী হামলা চালাচ্ছে : চীন ইসরায়েলি বাহিনী গাজায় বৃষ্টির মতো বিমান হামলা চালাচ্ছে গাজায় ইসরায়েলি হামলার প্রতিবাদে লন্ডনে বিক্ষোভ ‘করোনা সারাতে গোবর-গোমূত্র কাজ করে না’ এ মন্তবে ভারতে সাংবাদিকসহ ২জন রিমান্ডে আগামী ২৯ মে পর্যন্ত কওমী মাদরাসাসহ সব বিশ্ববিদ্যালয়ের ছুটি ‘ইনসেপ্টা’ চীনের করোনার টিকা উৎপাদন করবে সারাদেশে করোনায় একদিনে ২৫ জনের মৃত্যু ‘লকডাউনে’ লঞ্চ, ট্রেন ও দূরপাল্লার বাস চলাচল বন্ধ হঠাৎ দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের সব নদ-নদীর পানি বাড়ছে
মঙ্গলবার, ১৮ মে ২০২১, ০১:৫৩ পূর্বাহ্ন

এবার নিজ নিজ ঘরে বসে ঈদের আনন্দ করতে বললে প্রধানমন্ত্রী

দূরবীণ নিউজ ডেস্ক:
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবার করোনা মহামারিতে নিজ নিজ ঘরে বসে পরিবারের সদস্যেদর সঙ্গে ঈদের আনন্দ উপভোগ করাতে দেশবাসীর প্রতি অনুরোধ জানিয়েছেন । তিনি বলেছেন, ‘এ বছর আমরা সশরীর পরস্পরের সঙ্গে মিলিত হতে বা ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করতে না পারলেও টেলিফোন বা ভার্চ্যুয়াল মাধ্যমে আত্মীয়স্বজনের খোঁজখবর নেব।’

রোববার (২৪ মে) জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সন্ধ্যা সাড়ে সাতটায় এ ভাষণ টেলিভিশন ও রেডিওতে সম্প্রচার করা হয়। তিনি করোনার ভয়াবহতার এ সময়ে সাহায্য–সহযোগিতা নিয়ে মানুষের পাশে সরকার থাকবে বলেও প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। কাল সোমবার পবিত্র ঈদুল ফিতর।

পরিবারের সদস্যদের নিয়ে ঈদ উদযাপন করার পাশাপাশি দরিদ্র প্রতিবেশীর প্রতি দায়িত্ব পালনের কথাও স্মরণ করিয়ে দেন শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, ‘এই দুঃসময়ে আপনি আপনার দরিদ্র প্রতিবেশী, গ্রামবাসী বা এলাকাবাসীর কথা ভুলে যাবেন না। আপনার যেটুকু সামর্থ্য আছে, তা-ই নিয়ে তাঁদের পাশে দাঁড়ান। তাহলেই ঈদের আনন্দে পরিপূর্ণ হয়ে উঠবে আপনার ঘর এবং হৃদয়-মন।’

প্রধানমন্ত্রী ভাষণের শুরুতেই বাংলাদেশের জনগণসহ বিশ্ববাসীকে পবিত্র ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা জানান তিনি গত বুধবার আঘাত হানা ঘূর্ণিঝড় আম্পানের কথাও স্মরণ করেন। শেখ হাসিনা বলেন, কথায় আছে, ‘বিপদ কখনো একা আসে না’। করোনাভাইরাসের এই মহামারির মধ্যে গত বুধবার রাজশাহী, খুলনা, বরিশাল এবং চট্টগাম বিভাগসহ উপকূলীয় জেলাগুলোতে প্রলয়ংকরী ঘূর্ণিঝড় ‘আমপান’ আঘাত হানে।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘আল্লাহর অশেষ রহমত এবং আমাদের আগাম প্রস্তুতির কারণে জানমালের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি এড়ানো সম্ভব হয়েছে। ঘূর্ণিঝড়ে যাতে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি না হয়, সে জন্য বিভিন্ন দ্বীপ, চরাঞ্চল এবং সমুদ্র-উপকূলে বসবাসকারী ২৪ লাখেরও বেশি মানুষকে এবং প্রায় ৬ লাখ গবাদিপশু আমরা ঘূর্ণিঝড় আশ্রয়কেন্দ্রে নিয়ে আসার ব্যবস্থা করি।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘সর্বাত্মক প্রস্তুতি সত্ত্বেও গাছ ও দেয়ালচাপায় বেশ কয়েকজন মানুষ মারা গেছেন এবং বহু ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত হয়েছে। আমি তাঁদের রুহের মাগফিরাত কামনা করছি।’

করোনাভাইরাসের প্রকোপের কারণে মসজিদে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে ঈদের নামাজ আদায়ের ব্যবস্থার কথাও স্মরণ করিয়ে দেন তিনি। শেখ হাসিনা বলেন, ‘করোনাভাইরাস প্রতিরোধে এ বছর আমরা সকল ধরনের গণজমায়েতের ওপর বিধিনিষেধ আরোপ করেছি। কাজেই স্বাভাবিক সময়ের মতো এবার ঈদুল ফিতর উদযাপন করা সম্ভব হবে না। ঈদগাহ ময়দানের পরিবর্তে মসজিদে মসজিদে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে এবং স্বাস্থ্যবিধি মেনে ঈদের নামাজ আদায় করার ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।’

প্রধানমন্ত্রী জানান, এর আগে জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকীর উদ্বোধন অনুষ্ঠান, স্বাধীনতা দিবস এবং বাংলা নববর্ষের অনুষ্ঠানও জনসমাগম এড়িয়ে রেডিও, টেলিভিশন এবং ডিজিটাল মাধ্যমে উদযাপন করা হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী পবিত্র ঈদুল ফিতরে উপলক্ষে চিকিৎসক, নার্সসহ অন্যান্য স্বাস্থ্যকর্মী, পুলিশ, বিজিবি, আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনী, সশস্ত্র বাহিনীর সদস্য এবং কেন্দ্রীয় ও মাঠ প্রশাসনের কর্মকর্তাদের শুভেচ্ছা জানান। তাঁরা সবাই জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কাজ করছেন বলে উল্লেখ করেন প্রধানমন্ত্রী।

শেখ হাসিনা বলেন, সংবাদকর্মীরা সংক্রমণের ঝুঁকি উপেক্ষা করে করোনা পরিস্থিতি তুলে ধরছেন। মানুষকে সচেতন করতে সহায়তা করছেন। তিনি তাঁদেরও ধন্যবাদ এবং শুভেচ্ছা জানান।
শেখ হাসিনা বলেন, ‘করোনার সময় আমাদের আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর বিপুলসংখ্যক সদস্য, ডাক্তার ও স্বাস্থ্যকর্মী, প্রশাসনের উল্লেখযোগ্যসংখ্যক কর্মকর্তা, ব্যাংক কর্মী এবং সংবাদকর্মী করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হয়েছেন।

বেশ কয়েকজন ডাক্তার ও স্বাস্থ্যকর্মী, পুলিশ ও আনসার বাহিনীর সদস্য, প্রশাসনের কর্মকর্তা এবং ব্যাংক ও সংবাদকর্মী ইতিমধ্যে মারা গেছেন। আমি তাঁদের রুহের মাগফিরাত কামনা করছি এবং শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানাচ্ছি।’

করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলায় তাঁর সরকারের নেওয়া বিভিন্ন পদক্ষেপ তুলে ধরেন শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, ‘ইতিমধ্যে আমরা চিকিৎসা সক্ষমতা অনেক গুণ বৃদ্ধি করেছি। সরকারি হাসপাতালের পাশাপাশি বেসরকারি খাতের উল্লেখযোগ্যসংখ্যক হাসপাতালকেও আমরা করোনাভাইরাস চিকিৎসায় সম্পৃক্ত করেছি। জরুরি ভিত্তিতে ২ হাজার ডাক্তার এবং ৫ হাজার নার্স নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। তাঁরা ইতিমধ্যেই কাজ শুরু করেছেন।’

শেখ হাসিনা বলেন, কর্মহীন মানুষের সহায়তার জন্য সরকার সর্বাত্মক উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। খাদ্যসহায়তা ছাড়াও দেওয়া হচ্ছে নগদ অর্থ। এ পর্যন্ত ১ লাখ ৬২ হাজার ৮৬৭ মেট্রিক টন চাল এবং নগদ ৯১ কোটি ৪৭ লাখ ৭২ হাজার টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী বরেন, ১০ কেজি টাকা দরে বিক্রির জন্য ৮০ হাজার মেট্রিক টন চাল বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। মে মাসে দরিদ্র পরিবারের জন্য অতিরিক্ত ৫০ লাখ কার্ড বিতরণ করা হয়েছে, যার মাধ্যমে তাঁরা এই চাল কিনতে পারবেন। কাজ হারিয়েছেন কিন্তু কোনো সহায়তা কর্মসূচির অন্তর্ভুক্ত নন, এ ধরনের ৫০ লাখ পরিবারকে আড়াই হাজার টাকা করে মোট ১ হাজার ২৫০ কোটি টাকা দেওয়া হয়েছে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে।

প্রধানমন্ত্রী জানান, কওমি মাদ্রাসার ছাত্র-শিক্ষকদের জন্য দুই দফায় ১৭ কোটিরও বেশি এবং সারা দেশের মসজিদের ইমাম-মুয়াজ্জিনদের জন্য ১২২ কোটি ২ লাখ ১৫ হাজার টাকা সহায়তা দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া সমাজের প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর সহায়তার জন্যও বিশেষ ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।
শেখ হাসিনা বলেন, যত দিন পর্যন্ত পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হবে, তত দিন এসব কর্মসূচি অব্যাহত থাকবে।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘উৎপাদনব্যবস্থাকে পুনরায় সচল করতে আমরা ইতিমধ্যে ১ লাখ ১ হাজার ১১৭ কোটি টাকার প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করেছি, যা জিডিপির ৩ দশমিক ৬ শতাংশ।’

প্রধানমন্ত্রী বোরোর বাম্পার ফলনকে ‘আশীর্বাদ’ হিসেবে উল্লেখ করেন। তিনি বলেন, এ বছর প্রায় ৪৮ লাখ হেক্টর জমিতে বোরো ধানের আবাদ করা হয়। ইতিমধ্যে বোরো ধান কাটা-মাড়াই প্রায় শেষ। এই দুর্যোগ মুহূর্তে দেশের খাদ্যনিরাপত্তা নিশ্চিত করতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখার জন্য আমি কৃষক ভাইবোন এবং কৃষির সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সকলকে অভিনন্দন ও ঈদের শুভেচ্ছা জানাচ্ছি।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘ধান কাটা-মাড়াইয়ে সহায়তার জন্য আমরা কৃষকদের ভর্তুকি মূল্যে কম্বাইন্ড হারভেস্টর এবং রিপার সরবরাহের ব্যবস্থা করেছি। এ জন্য ২০০ কোটি টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়। মাত্র ৪ শতাংশ সুদে কৃষকদের জন্য ৫ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার পূর্বাভাসে বলা হচ্ছে করোনাভাইরাসের এই মহামারি সহসা দূর হবে না। কিন্তু জীবন তো থেমে থাকবে না। যত দিন না কোনো প্রতিষেধক আবিষ্কার হচ্ছে, তত দিন করোনাভাইরাসকে সঙ্গী করেই হয়তো আমাদের বাঁচতে হবে। জীবন-জীবিকার স্বার্থে চালু করতে হবে অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড।’
শেখ হাসিনা বলেন, বিশ্বের প্রায় সব দেশই ইতিমধ্যে লকডাইন শিথিল করতে বাধ্য হয়েছে। কারণ, অনির্দিষ্টকালের জন্য মানুষের আয়-রোজগারের পথ বন্ধ করে রাখা সম্ভব নয়। বাংলাদেশের মতো উন্নয়নশীল দেশের পক্ষে তো নয়ই।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমরা ঈদের আগে স্বাস্থ্যবিধি এবং অন্যান্য নিয়মনকানুন মেনে কিছু কিছু দোকানপাট খুলে দেওয়ার অনুমোদন দিয়েছি। যাঁরা ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান খুলেছেন এবং যাঁরা দোকানে কেনাকাটা করতে যাচ্ছেন, আপনারা অবশ্যই নিজেকে সুরক্ষিত রাখবেন। ভিড় এড়িয়ে চলবেন।’

প্রধানমন্ত্রী জনগণের উদ্দেশে বলেন, ‘আপনার সুরক্ষা আপনার হাতে। মনে রাখবেন আপনি সুরক্ষিত থাকলে আপনার পরিবার সুরক্ষিত থাকবে, প্রতিবেশী সুরক্ষিত থাকবে, দেশ সুরক্ষিত থাকবে।’

শেখ হাসিনা বিদ্রোহী কবি কাজী নজরুল ইসলামের ‘ও মন রমজানের ঐ রোজার শেষে এলো খুশির ঈদ’ গানটির কয়েক চরণ তুলে ধরে তাঁর ভাষণ শেষ করেন। #


আপনার মতামত লিখুন :

Deprecated: Theme without comments.php is deprecated since version 3.0.0 with no alternative available. Please include a comments.php template in your theme. in /home/courentn/public_html/wp-includes/functions.php on line 5061

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


অনুসন্ধান

করোনা আপডেট

বাংলাদেশে

আক্রান্ত
৭৮০,৮৫৭
সুস্থ
৭২৩,০৯৪
মৃত্যু
১২,১৮১
সূত্র: আইইডিসিআর

বিশ্বে

আক্রান্ত
১৬২,৮২৩,২৩৭
সুস্থ
৯৯,০৩৭,২৩৬
মৃত্যু
৩,৩৭৬,৯২২

.